আইয়ুব খান মন্টুর ডিমেনশিয়াঃ এমেরিকা থেকে বাংলাদেশে ফেরৎ

সন্মানিত পাঠক, সুভানুধ্যায়ীগন , এমেরিকায় বসবাসরত সকল বাংলাদেশী অভিবাসীবৃন্দ এবং আমার অতি প্রিয় নরসিংদী জেলার নাগরিকবৃন্দ–আপনাদের জ্ঞাতার্থে জানাচ্ছি যে,আমার হেলথ ফিচারটির মূল বিষয়বস্ত শুরু করার পূর্বে আমরকায় ডিমেনশিয়ার বর্তমান প্ভাব ও পরসংখ্ান, ডিমেনশিয়া কি, ডিমেনশিয়া রোগীদের বৈশিষ্ট্য ও আচরন ব্যাখা করছি ।
ANN ARBOR, Mich.—One in seven Americans over the age of 70 suffers from dementia, according to the first known nationally representative, population-based study to include men and women from all regions of the country. About 3.4 million people, or 13.9 percent of the population age 71 and older, have some form of dementia, the study found. As expected, the prevalence of dementia increased dramatically with age, from five percent of those aged 71 to 79 to 37.4 percent of those age 90 and older.
About 2.4 million of those with dementia, or 9.7 percent of the population age 71 and older, were found to have Alzheimer’s disease, the most common cause of dementia, according to the stud

মূল প্রবন্ধঃ  আমরা যদি আলোচ্য “Case Hisory” টির ব্যাবচ্ছেদ করি আমরা মূলতঃ একজন মানসিক রোগীর ব্যাক্তিগত ,সামাজিক, পারিবারিক জীবনের কিছু খন্ড চিএ দেখতে পাই এবং আলোচিত রোগটি তার জীবনকে বিভিন্ন দিকে  ধাবিত করে ।আলোচিত এই মানষিক রোগীর নাম- আইয়ুব  খান মন্টু  যার জন্মস্হান  বাঙলাদশ  কিন্তু  ডলারের  লোভে  পারি জমিয়েছেন সূদূর  আমেরিকা । কিন্তু বিধি বাম .. তিনি আমেরিকা আসার অাগে স্বপ্ন দেখতেন– আমেরিকার বাতাসে চারিদিকে শুধু  ডলার  ভাসছে , তিনি আমেরিকা গিয়ে শুধু ডলার কুড়াবেন  অআর খাবেন । কিন্তু আসার পর দেখলেন কাজ না করলে না খেয়ে মরতে হবে ।‌ অবশেষে বিফল মনেআরথে কাজ খুজতে লাগলেন – সেখানে  ও দেখা গেল বিপত্তি – তেমন কোন কাজ ও তো  তিনি  শিখেননি ।  একদিন বিকাল-বেলা তিনি এক পার্কের বেন্চে গিয়ে বসেন এবং বসার পর তার বাম পায়ের কাছে -” পেট্রল পাম্পের জন্য  শ্রমিক প্রয়োজন” লেখা একটি বিজ্ঞপ্তি দেখে হাতে তুলে নেন । তার কাজটি পছন্দ হয়ে গেলো কারন পেট্রল পাম্পের চাকরিটি জনপথের বাহিরে -আমেরিকার ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যের  একটি ছোট্র  শহর ইয়াকলোহোমায়  আর এখানে সবসময় গাড়ি যাতায়াত না করায় কাজও কম । তিনি আর কালবিলম্ব না করে তখনই ফ্লোরিডার ঐ পেট্রোল  পাম্পের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেন ।  পেট্রল পাম্পে পৌছে তার চোখ  ছানাভরা !  পেট্রল পাম্পের মালিক  একজন বাংলাদেশী ও জন্ম সিলেটের মৌলভীবাজার এলাকায় ,তার নাম জামাল উদ্দীন ।বছর খানেক আগে তার ছিল সুখী পরিবার আর পরিবারের সবাই অর্থ্যাৎ তার আমেরিকান ওয়াইফ,এক পুএ ও এক কন্যা   সুযোগ পেলেই তারা সবাই মিলে ঘুরতে বেরিয়ে পরেন ।তার  বিশ্ব-বিদ্যালয়ে পড়ুয়া পুএ ও কন্যা  গৃষ্মের ছুটিতে বাড়িতে আসামাএ সবাই  মিলে ঠিক করলো  তারা  নায়াগ্রা জলপ্রপাত দেখতে যাবে এবং তারা পরদিনই  বেরিয়ে পড়লো ।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *